কতিপয় বিচারপতি বিতর্কিত রায় দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কলঙ্কিত করেছেন-টাঙ্গাইলে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী

আশিকুর রহমান, টাঙ্গাইল : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ,ক,ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যেই মুক্তিযোদ্ধাদের পরিচয়পত্র ও স্থায়ী সনদপত্র প্রদান করা হবে। এছাড়াও আগামীতে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের নামে রাস্তা, ব্রীজ ও কালভার্টের নামকরণ করা হবে।

সোমবার দুপুরে টাঙ্গাইল শহরে মুক্তিযুদ্ধ শহীদ জাদুঘর পরিদর্শনকালে এক মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

পরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বিচার বিভাগ ও বিচারপতিদের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, দেশে আর কোন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা তালিকা করার সুযোগ নাই। মুজিব নগর সকরারের কর্মচারী নামে যারা ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়ে সাব-রেজিষ্টার, কাস্টমর্সসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে চাকুরি করছেন তাদের পক্ষ্যে কতিপয় বিচারপ্রতি রায় দিয়ে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার কলঙ্কিত করেছেন।

এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, আমরা তাদের বাদ দিয়েছি। আমরা তাদের মানিনা। আদলতে কি হয়েছে আপনার তা জানেন। এটা খুব দুঃখজনক। আমাদের কাছে না জেনে, না শুনে তাদের ক্ষমতা সম্পর্কে সচেতন না হয়ে যা করা হয়েছে তা ক্ষমতা ও বিচারের নামে দুবৃত্তায়ন করা হয়েছে। মনে রাখবেন মুক্তিযোদ্ধারা দেশ স্বাধীন করেছেন বলেই আপনি বিচারপতি হয়েছেন। ভুলে যাইয়েননা যে আপনার কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে আমরা যুদ্ধ করেনি।

এসময় তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে সীমালঙ্ঘন না করার জন্য অনুরোধ ও হুশিয়ারারি করে বলেন, বারবার তারা মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে সীমালঙ্ঘন করছে, বলে তাদের বয়সও লেখা যাবেনা। ওই অপদার্থ ও কুলাঙ্গারা স্বাধীনতার পরে যাদের জম্ম তাদেরকেও মুক্তিযোদ্ধা বানানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছে! সেইসব কুলাঙ্গারদের মেনে চলতে হবে তা ভাবার কোন কারণ নাই। জজ সাহেব-বিচারপ্রতিরা একটু বুঝার চেষ্টা করেন। যে আদেশ মুক্তিযোদ্ধারা লাথি মেরে ফেলে দিবে ভবিষৎতে তা না দেবার চেষ্টা কইরেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- স্থানীয় সংনদ সদস্য ছানোয়ার হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান খান ফারুক, সাবেক রাষ্ট্রদুত ও মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার উল আলম সহিদ ও টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরন। পরে তিনি মুক্তিয্দ্ধু জাদুঘর পরিদর্শন করেন।

সবখবর/ আওয়াল

Facebook Comments