পাবনায় ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন, ৬ জনের জেল জরিমানা

মীর্জা অপু, পাবনা : অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে যমুনা নদী থেকে বালু উত্তোলনের দায়ে পাবনা বেড়ায় ৬ জনকে জেল জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব আসিফ আনাম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়।

আদালত সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নটাখোলা যমুনা নদীতে জাতীয় গ্রিডের বিদ্যুৎ সঞ্চালনের টাওয়ারের কোল ঘেষে খননযন্ত্র (ড্রেজার) বসিয়ে বালু উত্তোলন করছে ক্ষমতাশালী একটি মহল। বালু উত্তোলনের ফলে টাওয়ারটি ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হতে পারে এমন সংবাদে অভিযান চালিয়ে ২জন বালুদস্যুকে আটক করা হয়।

আটকক ইলিয়াস (২৪), জুলহাস (২৮) প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন তারা জরিমানার এক লক্ষ টাকা পরিশোধ করে মুক্তি পান।

একই দিন বিকেলে উপজেলার কৈটলা সুইজ গেটের কোল ঘেষে বালু উত্তোলনের দায়ে ৪ জনকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হল রুহুল আমিন (৪৮) কামরুল (৩৫) আবু হানিফ (২০) মোজাম্মেল (৩৫) এদের উপজেলা পরিষদে এনে ৪ জনকেও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ১৫ (১) ধারায় জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমান আদালত।

একাধিক এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা যায় প্রভাবশালী একটা মহল শুকনো মৌসুমে এলেই যমুনা নদীর পার ঘেসে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তলন করে থাকে,যার ফলে বর্ষা মৌসুম এলেই নদীর পার ভেঙে শত শত ঘরবাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়ে থাকে। এলাকাবাসী আরো জানান,বালু উত্তলনকারীরা অনেক প্রভাবশালী হওয়ায় আমরা ভয়ে কেউ কখনো কিছু বলতে সাহস পাইনা।

ইউএনও আসিফ আনাম সিদ্দিকী বলেন, বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত গঠন করে আমি একের পর এক অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। অবৈধ বালু উত্তলন কারিরা যতোই প্রভাবশালী হোক না কেন এদের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে। যেভাবেই হোক অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করা হবেই।

Facebook Comments