সাটুরিয়ার গোপালপুরে খেয়াঘাটে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার

আপেল মাহমুদ চৌধুরী, সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) : মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলা ধলেশ্বরী নদীর ঘাটে দীর্ঘ দিনেও ব্রিজ নির্মিত না হওয়ায় জনসাধারনকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ধলেশ্বরী নদীর বিশাল জলরাশি নৌকায় পারি দিতে হয়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই ঘাট দিয়ে প্রতিদিন পায় ২০ হাজার লোক যাতায়াত করে। উপজেলার রাজৈর, গোপালপুর গ্রামে এই ঘাট।

এ ঘাটের মাঝি আরান (৫৫) ও পরিমল (৪৫) আক্ষেপ করে বললেন,দাদা আর কত খেয়া টানি। বাপ দাদার আমল থেকে শুনছি ধলেশ্বরী গোপালপুর ঘাটে ব্রিজ হবে। ব্রিজ তো হচ্ছে না। এ কথা আজ শুধু সুনিল মাঝির একা নয়, এ দাবি সাটুরিয়া ও দৌলতপুর উপজেলার লাখ লাখ মানুষের।

জানা গেছে, ধলেশ্বরী নদীর রাজের,গোপালপুর ঘাটের উপারে মানিকগঞ্জের ঘিওর ও দৌলতপুর উপজেলার বিভিন্ন বাজার রয়েছে। এ বাজার থেকে নানা রকম পণ্য ঘিওর ও দৌলতপুর উপজেলাসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়। এই এলাকার অনেক ব্যবসায়ী জেলা শহরের সাথে ব্যবসা করে থাকেন। যার কারনে বিভিন্ন মৌসুমে পাট, গম, চৈতালী ফসল, ধান, মরিচ, এই ঘাট দিয়ে বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ হয়ে থাকে। ফলে এই ঘাটে ব্রিজ না থাকায় এ দুই উপজেলার মানুষের ব্যবসা সংক্রান্ত যোগাযোগ প্রচাভাবে ব্যহত হচ্ছে। খেয়া পারাপারের বিড়ম্বনার কারণে অনেক কোমলমতি শিক্ষার্থীরা সময় মত স্কুলে পৌছাতে পারে না। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে এ ভোগান্ডি চরম আকার ধারন করে।

এছাড়াও এলাকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘব ঘিওর ও দৌলতপুর উপজেলার সাথে মানিকগঞ্জ জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজতর করতে বিভিন্ন সময়ে আসা স্থানীয় এমপিরা এই ধলেশ্বরী নদীর উপর ব্রিজ নির্মানের প্রতিশ্রতি দিয়ে আসছেন। কিন্তুু বাস্তবে তা কার্যকর হচ্ছে না। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন এম পি’র কাছে এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবী অতি তাড়াতাড়ি এ ব্রিজটি যেন নির্মান করা হয়।

Facebook Comments