৮ বিভাগীয় শহরে সমাবেশে করবে বিএনপি

সবখবর : দেশের আটটি বিভাগীয় শহরে সমাবেশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। এ লক্ষ্যে কর্মপরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে দলটির নীতিনির্ধারকরা।

বিভাগীয় সমাবেশকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে নেতাকর্মীদের মধ্যে চাঙ্গাভাব লক্ষ্য করা গেছে। সমাবেশ সফল করতে মহানগর ও জেলা নেতারা দফায় দফায় বৈঠক করছেন। মূল দলের পাশাপাশি অঙ্গসংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গেও তারা বসছেন। আগামী দিনে করণীয় সম্পর্কেও তাদের গাইডলাইন দেয়া জরুরি। ফলে নির্বাচনের পর ঝিমিয়ে পড়া নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হবে। কমিটি পুনর্গঠনকে কেন্দ্র করে সারা দেশে বিএনপির তৃণমূল চাঙ্গাও করা হচ্ছে। মনোবল ফিরিয়ে এনে নেতাকর্মীদের সক্রিয় করতে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি আট বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটির হাইকমান্ড।

এদিকে পুনর্গঠনকে কেন্দ্র করে কোথাও কোথাও উত্তাপ ছড়ানোর আশঙ্কাও রয়েছে। যোগ্য ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন এবং তৃণমূলের মতামত না নিয়ে সিন্ডিকেটের নেতৃত্বে পদ ভাগাভাগি করে নেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

তৃণমূল নেতাকর্মীদের অভিযোগ, যোগ্য ও ত্যাগীদের বাদ দিয়ে অযোগ্য ও সুবিধাবাদীদের নেতৃত্বে আনা হচ্ছে। এতে দল সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী হবে না। উল্টো যারা মামলা-হামলা সহ্য করে রাজনীতি করছেন, তারা নিরুৎসাহিত হবেন। ক্ষোভে-অভিমানে অনেকে রাজনীতি থেকে ধীরে ধীরে নিষ্ক্রিয় হয়ে যেতে পারেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, গত সংসদ নির্বাচনে ভোট ডাকাতির কারণে নেতাকর্মীদের মধ্যে একধরনের হতাশা তৈরি হয়েছে। আমাদের এখন মূল কাজই হচ্ছে হতাশাগ্রস্ত নেতাকর্মীদের জাগিয়ে তোলা। তাদের স্বপ্ন দেখানো। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ও নেতাকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, এ লক্ষ্যে আমরা জেলাগুলোর কমিটি আপডেট করছি। যারা যোগ্য ও ত্যাগী এবং আন্দোলন-সংগ্রামে যারা রাজপথে ছিলেন, তাদেরই নেতৃত্বে আনা হচ্ছে। এতে তৃণমূলে প্রাণ ফিরে আসবে বলে তিনি আশা করেন।

এদিকে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নতুন নির্বাচনের দাবিতে আট বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। পবিত্র ঈদুল আজহার আগেই এ কর্মসূচি শেষ করা হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এসব সমাবেশ হলেও এর মধ্য দিয়ে নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করতে চান নীতিনির্ধারকরা।

সবখবর/ নিউজ ডেস্ক

Facebook Comments