ঘিওরে মাদকের ব্যবসা জমজমাট, ধ্বংসের মুখে যুব সমাজ
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
ঘিওরে মাদকের ব্যবসা জমজমাট, ধ্বংসের মুখে যুব সমাজ




ঘিওরে মাদকের ব্যবসা জমজমাট, ধ্বংসের মুখে যুব সমাজ

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২
  • ৪৭১ জন পড়েছে
Manikganj

রামপ্রসাদ সরকার দীপু, স্টাফ রিপোর্টার: মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে আশংকাজনকভাবে ইয়াবা, হেরোইন ও গাঁজার ব্যবসা জমজমাট হয়ে পরেছে। এ নেশার কবলে পরে এলাকা তরুন শিক্ষিত অশিক্ষিত বেকার যুবকেরা ধংসের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। অনেক নেশার টাকা সংগ্রহ করতে না পেরে চুরি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িয়ে পরছে। এলাকা অভিভাবক মহল তাদের অনাগত সন্তানদের নিয়ে চরম বিপাকে আছেন।

উপজেলা মাসিক আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় মাদক বিক্রেতা এবং নেশাখোরদের বিরুদ্ধে সকল সদস্যরা কঠোর আলোচনা করেন। সকল প্রকার নেশাজাত দ্রব্য বন্ধের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের নিকট জোর দাবি করেন।

জানাগেছে, পাবনা জেলার নগরবাড়ি, দৌলতদিয়া ঘাট এবং সাভার থেকে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীরা সোর্সের মাধ্যমে মাদকজাত দ্রবাদি ঘিওরে আনে। ঘিওর বাজারের গরু হাট, মোন্তাজ মার্কেট, ঘিওর মেইনরোড, কুস্তা ব্রীজ, পঞ্চরাস্তা, গোলাপ নগর,তরা ব্রীজ সংলগ্ন এলাকার এক শ্রেনীর যুবক ইয়াবা, হোরোইন ও গাজা প্রকাশ্যে বিক্রি করছে। এই সব বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা আছে। মাদক মামলায় তারা জামিনে এসে পূনরায় মাদক বিক্রি শুরু করে। সংঘবদ্ধ এই চক্রটি বিভিন্ন স্থানে দলবদ্ধভাবে চলাফেরা করে। সন্ধ্যার পরে বিভিন্ন এলাকায় সোর্সের মাধ্যমে তারা প্রতি পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট ৪৫০ টাকা, প্রতি পুড়িয়া হেরোইন ৪০০ টাকা এবং গাঁজা প্রতি পুড়িয়া ১৫০ টাকা করে বিক্রি করে। অপর দিকে ঘিওর বাজারের বিভিন্ন হোমিও দোকানগুলোতে অবাদে রেকডি ফাইড স্পীরিট বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি দিন সন্ধ্যার পরে এক শ্রেনীর শ্রমিকরা রেকডি ফাইড স্পীরিট প্রাণ করে বিভিন্ন স্থানে মাতলামি করে। প্রতি পিচ স্পীরিটের ছোট শিশি ৭০ থেকে ৮০ টাকা বিক্রি হয়। বিভিন্ন অনুষ্ঠানগুলোতে স্পীরিট খেয়ে মাতলামী করে। ঘিওর গরু হাটায় মদ’ গাঁজা, ইয়াবা, হেরোইনসহ সকল প্রকার মাদকের আড্ডা চলছে। সন্ধ্যার পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত স্থানীয় সংঘবদ্ধ একটি চক্র প্রকাশ্যে তাদের অবৈধ কর্মকান্ড চালাচ্ছে। মাদকে আসক্ত হয়ে অনেক তরুন এবং যুবকের মস্তিকে মারাত্মক সমস্যা হয়েছে। অনেকে বিভিন্ন অপরাধে জরিয়ে পরেছে। এদের খুঁটি এতোই শক্তিশালী যে জীবনের ভয়ে কেই মুখ ফুটে কোন রকমের প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঘিওর, পয়লা বালিয়াখোড়া, বানিয়াজুরী, নালী ও বড়টিয়া ইউনিয়নের জন প্রতিনিধিরা সাংবাদিকদের জানান, বর্তমানে তাদের এলাকাগুলোতে মাদকের আড্ডা ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। এলাকার উঠতি বয়সের যুবকেরা এই নেশার কবলে পরে ধংস হয়ে যাচ্ছে। এলাকায় চুরিসহ অসামাজিক কার্যকলাপ বেড়ে গেছে। বিবাহ বিচ্ছেদসহ দাম্পত্য জীবনে কলোহ বেড়ে যাচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন অবিভাবক জানান, গত বছর তার ছেলে এসএসসি পরীক্ষা দেবার পরে মাদকাশক্ত হয়ে পরে। বাড়ির সমস্ত কিছু এক বছরের মধ্যে বিক্রি করে ফেলে। বর্তমানে তার দুটি সন্তান মাদকাশক্ত। একাধিক মামলা রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। সংসারে চরম অশান্তি চলছে। মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে তিনি প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

ঘিওর থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমিনুর রহমান জানান, মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলমান আছে। ঘিওর উপজেলাতে কোন প্রকার মাদক বিক্রি করতে দেওয়া হবেনা বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান।




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর