জিরা’য় আছে আশ্চর্য উপকারিতা | সব খবর | Sob khobar
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
জিরা’য় আছে আশ্চর্য উপকারিতা | সব খবর | Sob khobar




জিরা’য় আছে আশ্চর্য উপকারিতা

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ৩২ জন পড়েছে

লাইফস্টাইল ডেস্ক: বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশেও জিরা মশলার ব্যবহার অনেক। আমরা সবাই জানি, এ মশলাটি রান্নার স্বাদ বৃদ্ধিতে ব্যবহার করা হয়। তবে শুধু যে স্বাদের জন্যই এই মশলাটি ব্যবহার করা হয় তা ভাবা উচিত নয়। মশলাটি রান্নার স্বাদ বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীরকে সুস্থ রাখতেও বিরাট ভূমিকা রাখে।

বাংলাদেশ-ভারতের পাশাপাশি সমগ্র এশিয়া মহাদেশেই জিরার স্বাস্থ্য গুণাগুণের জন্য বিশেষভাবে সুপরিচিত। অন্যান্য দেশে রান্নাসহ জিরা ভিজিয়ে রেখে এর পানি পান করে থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে, জিরা পানির এই প্রাকৃতিক উপাদানটিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন, ভিটামিন, অ্যান্টি-কার্সিনোজেনিক প্রপাটিজ, কার্বোহাইড্রেট, মিনারেল এবং নানা সব উপকারি ফ্যাটি অ্যাসিড, যা নানাভাবে শরীরের উপকার করে থাকে।

জিরার দানা প্রাকৃতিকভাবে লোহার উৎস। এক চামচ জিরারগুঁড়ায় আছে ১.৪ মিলিগ্রাম লোহা বা আয়রন। আধুনিক গবেষণা বলছে, শরীরের ক্ষতিকারক ট্রাইগ্লিসারইড নিয়ন্ত্রিত থাকে জিরার প্রভাবে। জিরা ভিজিয়ে খেলে কি কি উপকারীতা পাওয়া যায় জেনে নিই-

হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি করে: বাঙালি মানেই জন্ম খাদ্যরসিক। আর এমনটা হওয়া মানেই বদ-হজম এবং পেটে গ্যাস জমা । এমন অবস্থা যদি আপনারও হয়ে থাকে, তাহলে আজ থেকেই প্রতিদিন এক গ্লাস পানিতে পরিমাণ মতো জিরা ভিজিয়ে সেই পানি পান করা শুরু করুন, দেখবেন অধিক পরিমাণ খাবার খেলেও এবার থেকে আর বদ-হজন হবে না। জিরাতে থাকা একাদিক উপাকারি উপাদান হজম শক্তির উন্নতি ঘটানোসহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ।

লিভারের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে: বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে, নিয়মিত জিরা পানি খেলে শরীরের ডায়াজেস্টিভ এনাজাইমের উৎপাদন বেড়ে যায়, সেই সঙ্গে লিভারে উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানেরাও শরীর থেকে বেরিয়ে যায়। ফলে লিভারের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে সময় লাগে না।

রেসপিরেটরি সিস্টেমের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়: জিরায় উপস্থিত বেশ কিছু উপকারি উপাদান শরীরে প্রবেশ করার পর বুকে মিউকাসের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা কমে, সেই সঙ্গে ফুসফুসের কর্মক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়। ফলে নানাবিধ রেসপিরেটরি ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা হ্রাস পায়।

রোগ প্রতিরাধ ক্ষমতা বাড়ায়: জিরায় উপস্থিত আয়রন শরীরে প্রবেশ করার পর লহিত রক্ত কণিকার উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। সেই সঙ্গে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ঘাটতিও দূর করে। ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা এতটাই শক্তিশালী হয়ে ওঠে যে ছোট-বড় কোন রোগই ধারে কাছে আসতে পারে না । তাই সারা বছর যদি চাঙ্গা থাকতে চান, তাহল আজ থেকেই জিরা পানি খাওয়া শুরু করতে পারেন। দেখবেন দারুন উপকার মিলবে।

শরীরকে ভিতর থেকে তরতাজা রাখে: নিয়মিত জিরার পানি পান করলে শরীরে জলের ঘাটতি দূর হয়। সেই সঙ্গে দেহের অন্দরের তাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। ফলে শরীর শুকিয়ে গিয়ে কোনও ধরনের সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। শরীরকে ডিহাইড্রেট করার পাশাপাশি খাওয়া মাত্র দেহের ভিতরে ইলেকট্রোলাইট ব্যালেন্স ঠিক হতে শুরু করে। ফলে শরীরে লিকুইড ব্যালেন্স ঠিক থাকে। সেই সঙ্গে শরীর ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস পায়।

ডায়াবেটিসের মতো রোগ দূরে পালায়: একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত সকাল বেলা খালি পেটে জিরে ভেজানো পানি খেলে ইনসুলিনের কর্মক্ষমতা এতটা বেড়ে যায় যে রক্তে শর্করার মাত্রা কমতে শুরু করে। এই কারণেই তো ডায়াবেটিস রোগীদের জিরা ভেজানো পানি পানের পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকেরা।

ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণে রাখে: প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক গ্লাস করে জিরা পানি খাওয়ার অভ্যাস করলে শরীরে ইলেকট্রোলাইট ব্যালেন্স যেমন ঠিক থাকবে ঠিক তেমনি পটাশিয়ামের ঘাটতিও দূর করতে সাহায্য করবে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ব্লাড প্রেসার কমতে শুরু করে। আসলে পটাশিয়াম, শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা ঠিক রাখার মাধ্যমে রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে থাকে। প্রসঙ্গত, বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতিতেও এই ঘরোয়া ঔষধিটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই যাদের পরিবারে হার্টের রোগের ইতিহাস রয়েছে, তারা নিয়মিত যদি এই প্রকৃতিক উপাদানটি গ্রহণ করতে পারেন, তাহলে হার্ট নিয়ে চিন্তা অনেকটাই কমে যাবে।

ওজন হ্রাসে সাহায্য করে: জিরায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। এই উপাদানটি শরীরে প্রবেশ করার পর মেটাবলিজম রেট বাড়িয়ে দেয়। ফলে খাবার এত সুন্দরভাবে হজম হতে শুরু করে যে ওজন বাড়ার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। ফাইবার আরেকভাবেও ওজন কমাতে সাহায্য করে থাকে। ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খেলে অনেকক্ষণ পর্যন্ত পেট ভরা থাকে। ফলে বারে বারে খাবার খাওয়ার ইচ্ছা চলে যায়। আর কম খাবার খাওয়া মানে ওজনও কমে যাওয়া।

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়: রোজ ডায়েটের তালিকায় এই পানীয়টি রাখলে ত্বকের ভিতরের পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, সেলেনিয়াম, কপার এবং ম্যাঙ্গানিজের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে, যার প্রভাবে ত্বকের ভেতরে উপস্থিত টক্সিক উপদানেরা বেরিয়ে যেতে বাধ্য হয়। ফলে ত্বকের বয়স তো কমেই, সেই সঙ্গে সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পায় চোখে পরার মতো।

পাত্রে পরিমাণ মতো পানি এবং জিরা নিয়ে কম করে ৫ মিনিট ফুটিয়ে নিতে হবে। তারপর পানিটা ছেঁকে নিয়ে তাতে অল্প করে মধু মিশিয়ে খেয়ে ফেলতে হবে। কয়েক সপ্তাহ এইভাবে খেলে উপকার পাবেন।

সবখবর/ রা.চৌ




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর