নানা সংকটে দিশেহারা পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ফেরিঘাট | সব খবর | Sob khobar
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
নানা সংকটে দিশেহারা পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ফেরিঘাট | সব খবর | Sob khobar




নানা সংকটে দিশেহারা পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ফেরিঘাট

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৫ জন পড়েছে
পাটরিয়া ঘাট

মানিকগঞ্জ: দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট। প্রতিদিন প্রায় দুই থেকে আড়াই হাজারের মত বাস, ব্যক্তিগত ছোট গাড়ী, পণ্যবাহী ট্রাকসহ অন্যান্য যানবাহন পার হয় এই নৌরুট দিয়ে। কিন্তু প্রায় সময়ই বৈরী আবহাওয়া, নব্যতা সংকট, ফেরি সংকটসহ নানা সমস্যার কারনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয় যানবাহন চালকদের। ফেরি চলাচল ব্যাহত হলে যখন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ছোট গাড়ি, বাস এবং জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক পার করা হয় তখনি দীর্ঘ ভোগান্তির কবলে পড়ে ট্রাক চালকরা। অপেক্ষা করতে হয় দিনের পর দিন।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে নাব্যতা সংকটের কারণে ১৩ জুলাই থেকে পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় ড্রেজিং কার্যক্রম চলমান রয়েছে। নদীতে ধীর গতিতে ড্রেজিং কার্যক্রম পরিচালিত হওয়ায় মূল চ্যানেলযোগে ফেরি চলাচলে এখনও বিঘ্ন ঘটছে। পাটুরিয়া ৫নং ফেরি ঘাটের সম্মুখে সৃষ্ট ডুবোচরে ফেরি আটকে যাওয়ায় গত সোমবার রাত থেকে ঘাটটি সাময়িক বন্ধ রয়েছে। বাকী ঘাটগুলো কোন রকম চালু থাকলেও কাঙ্খিত ফেরি চলাচল না করায় ঘাট এলাকায় পারের অপেক্ষায় থাকা যানবাহনের সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে যানবাহন ও যাত্রী পারাপারে ব্যবহৃত হয় ছোট বড় মোট ১৯টি ফেরি। তবে এর মধ্যে ৬টি ফেরি বিকল হয়ে মেরামত কারখানায় রয়েছে। বাকি ১৩টি ফেরির মাধ্যমে চলছে যান পারাপারের কাজ। ৬টি ফেরি বিকল থাকায় ভোগান্তি বাড়লেও অল্প সময়ে ফেরিগুলো মেরামত করা সম্ভব নয় বলে জানান কর্তৃপক্ষ। এছাড়া ফেরিগুলো বেশ পুরাতন হওয়ায় লক্কর ঝক্কর হয়ে যাওয়ার ফলে নষ্ট হয় বেশি। নষ্ট ফেরিগুলো নাম মাত্র মেরামত করে আবার নৌরুটে নামানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলে ১৩ থেকে ১৪টি। যার মাধ্যমে ১ দিনে সর্বোচ্চ দুই থেকে আড়াই হাজার যানবাহন পার করা সম্ভব। যখনি এর চেয়ে বাড়তি চাপ পড়ে তখনি শুরু হয় ভোগান্তি।

কুষ্টিয়া, যশোর, ফরিদপুর, খুলনাগামী কয়েকজন ট্রাক চালকদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, ফেরি চলাচল ব্যাহত হলেই সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হয় তাদের। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ছোট গাড়ি, বাস এবং জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক পার করা হয় কিন্তু আমাদের অপেক্ষা করতে হয় দিনের পর দিন। যারা নির্ধারিত টিকিটের চেয়ে বেশি টাকা দেয় তারাই আগে টিকিট পায়। অতিরিক্ত টাকা না দিলে আমাদের সহজে পাড়ের টিকিট দেয়না কর্তৃপক্ষ। যাত্রীবাহী বাসের দোহাই দিয়ে আমাদেরকে ঘাটে আটকে রাখা হয়। যখন ঘাটে আটকা পড়ে যাই তখন পকেটের সব টাকা খাওয়া দাওয়াতেই চলে যায়।

বিআইডব্লিউটিসির উপ-মহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি সংকট প্রকট। এছাড়া নাব্যতা সংকটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এর মধ্যে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে সীমিতভাবে ফেরি চলাচল করার কারণে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় বাড়তি যানবাহনের চাপ রয়েছে। যে কারণে ভোগান্তি বাড়ছে।

সবখবর/ নিউজ ডেস্ক




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর