নির্দিষ্ট পরিমান বাড়িভাড়া মওকুফ করলেন ব্যারিস্টার ইমাম হাসান | সব খবর | Sob khobar
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
নির্দিষ্ট পরিমান বাড়িভাড়া মওকুফ করলেন ব্যারিস্টার ইমাম হাসান | সব খবর | Sob khobar




নির্দিষ্ট পরিমান বাড়িভাড়া মওকুফ করলেন ব্যারিস্টার ইমাম হাসান

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০
  • ১২২ জন পড়েছে
নির্দিষ্ট পরিমান বাড়িভাড়া মওকুফ করলেন ব্যারিস্টার ইমাম হাসান
ব্যারিস্টার ইমাম হাসান ভূইয়া, আইনজীবী, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট

আসাদ জামান: ভাড়া পরিশোধ করতে না পারায় যেখানে ঝড়ের রাতেও ভাড়াটিয়াকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া ও মারধরের ঘটনা ঘটে সেখানে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন এক বাড়িওয়ালা। করোনাভাইরাসের প্রকোপ এরই মধ্যে এপ্রিল মাসের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট পরিমান অংশ মাফ করে দিয়েছেন তিনি। আশুলিয়ার ওই বাড়ি মালিকের নাম ব্যারিস্টার ইমাম হাসান ভূইয়া। যিনি পেশায় একজন আইনজীবী। তার এমন উদ্যোগে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেক বাড়ি মালিক ভাড়া মওকুফের চিন্তাভাবনা করছেন। ইমাম হাসান ভূইয়া বিষয়টি সবখবর ডটকমকে নিশ্চিত করেছেন।

করোনা নামক এক বিরল প্রাণঘাতী মহামারীতে সরকারের পাশাপাশি সারা দেশব্যাপী সকল পেশাজীবী মানুষ তাদের নিজস্ব অর্থায়নে খাদ্যসামগ্রী ও ঈদ উপহার নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সুপ্রীম কোর্টের একজন তরুণ আইনজীবী ব্যারিস্টার ইমাম হাসান ভূইয়া করোনা শুরু হওয়ার পর থেকে ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় প্রথম খাদ্যদ্রব্য বিতরণ শুরু করেন। পরিস্থিতি খারাপ হলে তিনি স্বপরিবারে তার জন্মস্থান আশুলিয়ায় চলে আসেন। তারপর থেকে আশুলিয়া সাভারের বিভিন্ন জায়গায় নিজে রাত ৯ টার পর বাড়িতে বাড়িতে যেয়ে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে আসেন। এই পর্যন্ত প্রায় ২০০০ মানুষের মধ্যে তিনি নিজ উদ্যোগ, বন্ধু ও আত্মীয়ের সহায়তায় খাদ্যসামগ্রী ও ঈদ উপহার বিতরণ করেছেন।

ব্যারিস্টার হাসানের সাথে কথা হলে তিনি সবখবর ডটকমকে জানান, আমরা প্রথম থেকেই একটা জিনিস প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছি যে কাউকে কিছু টাকার খাদ্যদ্রব্য দিয়ে কাউকে যাতে অপমানিত হতে না হয়। সেই জন্য আমরা প্রায় ৭০-৮০ জনের একটা টিম করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যদ্রব্য পৌঁছে দিয়েছি এবং ছবি তোলা হয়েছে দরজার অথবা পায়ের যাতে করে তাদের চেহারা বোঝা না যায়।

বাড়ি ভাড়া সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আশুলিয়াতে আমার ৫টি কলোনী রয়েছে। প্রথম থেকে আমি ভাড়াটিয়াদের তালিকা করে তাদের চাল, ডাল দিয়ে চুলা যাতে বন্ধ না হয় সেটা নিশ্চিত করার চেষ্টা করেছি। ভাড়ার ক্ষেত্রে খোঁজ খবর নিয়ে আমার ক্ষমতা এবং ভাড়াটিয়ার ক্ষমতা অনুযায়ী বাড়ীভাড়ার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট পরিমান (২০-৩৫ শতাংশ) মাফ করে দিয়েছি। কারো ক্ষেত্রে পুরো ভাড়া মাফ করে দিয়েছি। একতরফা কোনো নির্দিষ্ট পরিমান মাফ করতে বললে অনেক বাড়িয়ালা বিপদে পরে যাবে। ক্ষমতা অনুযায়ী আমাদের সবার এগিয়ে আসতে হবে। এই ভাবে সবাই মিলে একসাথে এগিয়ে আসলে আমরা ইনশা আল্লাহ এই বিপদ সামাল দিতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের বিশেষ করে সাভারের নবীনগরের থেকে আশুলিয়া এবং গাজীপুরের চন্দ্রা পর্যন্ত যেহেতু সবচেয়ে বেশি মানুষ বসবাস করে, সেহেতু এই অঞ্চলের জন্য বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতালে একটা করোনা টেস্টিং ল্যাব ও বিশেষায়িত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা খুবই জরুরী।

সবখবর/ আআ




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর