ভোগান্তি ছাড়াই বাড়ি ফিরছে মানুষ - সব খবর | Sob khobar
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
ভোগান্তি ছাড়াই বাড়ি ফিরছে মানুষ - সব খবর | Sob khobar




ভোগান্তি ছাড়াই বাড়ি ফিরছে মানুষ

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ১ মে, ২০২২
  • ৪৮ জন পড়েছে

আসাদ জামান: প্রিয় মানুষদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে ঘরমুখো মানুষ। কর্তৃপক্ষের বিশেষ ব্যবস্থাপনায় বিগত বছরের তুলনায় কোন ভোগান্তি ছাড়াই ফেরিঘাট পাড় হচ্ছে মানুষ। ঘাটে যানবাহনের চাপ থাকলেও যানজট নেই।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথ। প্রতি ঈদে ভোগান্তি নিয়ে লাখ লাখ মানুষ স্বজনদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে যায়। কিন্তু এবারের প্রেক্ষাপট একেবারেই উল্টো। ঈদ উপলক্ষ্যে নানা উদ্যোগের কারণে অল্প সময় অপেক্ষা করেই ঘাট পাড় হতে পারছে। ফেরিঘাটে দূর্ভোগ না থাকায় খুশি যাত্রী ও যানবাহন চালকরা।

কুষ্টিয়ার ছেলে তাশদীদুর রহমান। পড়াশোনা করেন ঢাকার একটি প্রাইভেট বিশ^বিদ্যালয়ে। ঢাকার ধানমন্ডি থেকে আড়াই ঘন্টায় পাটুরিয়া ঘাটে এসেছেন। তিনি অনেকটাই আশ্চর্য হয়েই এই প্রতিবেদককে বললেন আমার জীবনে ঢাকায় থেকে ঈদ ছাড়া সময়েও এত তারাতারি ঘাটে আসতে পারিনি। এবারের ব্যবস্থাপনায় আমি সত্যিই অনেক খুশি।

মারজিয়া রহমান জানান, আশুলিয়া থেকে বাসে উঠেছি সকাল সাড়ে ৬টার দিকে। যাব ঝিনাইদহ। ভেবেছিলাম এবারের ঈদযাত্রায় পথে অনেক ভোগান্তি হবে। কিন্তু দুই ঘন্টার মধ্যেই ঘাটে এসে পৌঁছেছি। আর ফেরির নাগাল পেতে সময় লেগেছে মাত্র ৪৫ মিনিটের মত। রাস্তায় কোথাও জ্যামে বসে থাকতে হয়নি। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত আসতে কোন বেগ পোহাতে হয়নি।

সেবা গ্রীণ লাইনের বাস চালক মহিদুর ইসলাম জানান, এমন কোন ঈদ নাই যে আমাদের ঘাটে ৬/৭ ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়নি। যে গরম ঘাট এলাকায় তাতে করে আমাদের অপেক্ষা করতে অনেক কষ্টই হয়। কিন্তু রাস্তায় যানবাহন থাকলেও যানজট নেই। এটার জন্য অনেক সময় আমাদের বেঁচে গেছে। সব মিলে ভালোই লাগছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহ মোহাম্মদ খালেদ নেওয়াজ জানান, ঈদের আগেই আমরা বেশ কয়েকটি সুনির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে কাজ করেছি। তার মধ্যে ঘাটকে কিভাবে যানজট মুক্ত রাখা যায় সেটাই ছিল আমাদের মূল লক্ষ্য। এজন্য আমরা ঘাট এলাকায় যানজট এড়াতে ১২ কিলোমিটার আগে টেপড়া বাসস্ট্যান্ড থেকেই ছোট গাড়ি গুলোকে বাইপাস রোডের মাধ্যমে ৫নং ফেরি ঘাটে পাঠিয়ে দিয়েছি। এতে করে ঘাটের চাপ অনেকটাই কমে এসেছে। আশা করি অন্যান্য দিনের মত যদি আর একটা দিন এভাবে কাজ করতে পারি তাহলে আমার কোন দূর্ভোগ ছাড়াই সবাইকে নদী পাড় করতে পারবো।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান জানান, ঈদের একমাস আগে থেকেই জেলা পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ, নৌ পুলিশ, বিআইডব্লিউটিসি ও বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ মিলে আমরা অনেকবার সমন্বয় সভা করেছি। কিভাবে মানুষ কোন প্রকার ভোগান্তি ছাড়াই বাড়ি ফিরতে পারে। তার জন্য আমরা যেসব উদ্যোগ নিয়েছি সেগুলো আমাদের পুলিশ অফিসার ও সদস্যরা ঠিকমত পালন করার কারণে এবারের ঈদ যাত্রায় যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়নি। ঈদ শেষে বাড়ি ফেরার পথেও আমাদের এমন চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

ঈদযাত্রাকে নির্বিঘ্ন করতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে ছোট বড় মোট ২১টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পাড় করা হচ্ছে। আর ঘাটে আসা জরুরি পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে ট্রাক টার্মিনালে অপেক্ষায় রাখা হচ্ছে। যানবাহনের চাপ কমে এলেই সেগুলো সিরিয়ালের ভিত্তিতে পাড় করা হচ্ছে।

আআ

 




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর