মানিকগঞ্জে কেন্দ্রীয় নেতৃববৃন্দদের অবরুদ্ধ করে মহিলা লীগের বিক্ষোভ - সব খবর | Sob khobar
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
মানিকগঞ্জে কেন্দ্রীয় নেতৃববৃন্দদের অবরুদ্ধ করে মহিলা লীগের বিক্ষোভ - সব খবর | Sob khobar




মানিকগঞ্জে কেন্দ্রীয় নেতৃববৃন্দদের অবরুদ্ধ করে মহিলা লীগের বিক্ষোভ

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: শনিবার, ১৮ জুন, ২০২২
  • ২৬৫ জন পড়েছে

মানিকগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে কমিটি গঠন প্রক্রিয়াকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে তা বাতিলের দাবিতে সার্কিট হাউজে কেন্দ্রীয় নেতাদের ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছে স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

শনিবার বিকেলে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় সরকারি দেবেন্দ্র কলেজ মিলনায়তনে। ওই সম্মেলনে প্রথম অধিবেশন শেষ হওয়ার পর পরই দ্বিতীয় অধিবেশন না ডেকেই মৃদুলা রহমানকে সভাপতি ও আনোয়ারা বেগমকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। কমিটি বাতিলের দাবিতে তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ করেন সম্মেলনে উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সার্কিট হাউজে যাওয়ার খবর পেয়ে শত শত নেতাকর্মী সেখানে উপস্থিত হয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন। বিক্ষোভকারীরা জানায় সম্মেলনে নিয়ম বহির্ভূতভাবে যাদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে তারা কেউ শহরে বসবাস করেন না। এছাড়াও তারা মহিলা আওয়ামী লীগের সাথে তারা কখনোই সম্পৃক্ত ছিলেন না। এমনকি দলের বেশিরভাগ নেতাকর্মীরা তাদের চিনেনও না।

জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন টিপু ও সাংগঠনিক সম্পাদক তায়েবুর রহমান বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি জেলা মহিলা লীগকে কবর দিয়ে গেলেন। জেলা শহরে নেতৃত্ব দেওয়া মতো যোগ্য নেতা থাকার পরও সভাপতি করা হয়েছে হরিরামপুর ও সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে সিংগাইর থেকে। এই কমিটি বাতিলের দাবিতে মহিলালীগের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ করছে।

সদ্য বিদায়ী জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মী চ্যাটার্জি বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি কোন নিয়মকানুন না মেনেই ৬০ জন ডেলিগেটর মতামত না নিয়েই অবৈধ ভাবে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষনা করেছেন। তিনি বলেন কেন্দ্রীয় কমিটি সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন শেষ হওয়ার পরই দ্বিতীয় অধিবেশ না ডেকেই ঘোষনা দেন যারা সভাপতি প্রার্থী তারা একদিকে দাঁড়ান আর সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা একদিকে দাঁড়ান। ঘোষনার পর সভাপতি পদে নীনা রহমান, সেলিনা আক্তার, মৃদুলা রহমান, সখিনা আক্তার জেবা ও ফরিদা আক্তার কনা এবং সাধারণ সম্পাদক পদে লক্ষ্মী চ্যাটার্জি, আনোয়ারা বেগম, রোমেজা আক্তার মাহি, কাজী শিউলী ও নাজমা আক্তার দাঁড়ান। এসময় বলা হয় নিজেরা মিল হয়ে সভাপতি পদে একজন ও সাধারণ সম্পাদক পদে একজনের নাম বলেন। এর পর সবার উপস্থিতিতে সভাপতি পদে মৃদুলা রহমানকে সমর্থন করে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী দুইজন ও সাধারণ সম্পাদক পদে লক্ষ্মী চ্যাটার্জিকে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী সমর্থন করে দুইজন। কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম কারো সাথে আলোচনা না করেই সভাপতি পদে মৃদুলা রহমান ও সাধারণ সম্পাদক পদে নিজের ভোট পাওয়া আনোয়ারা বেগমের নাম ঘোষনা করেন। এর পরই সম্মেলনে উপস্থিত নেতাকর্মীরা নির্ধারিত ডেলিগেটদের ভোটে কমিটি গঠনের শ্লোগান দেন। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ অবৈধ ভাবে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষনা করে চলে যান। যাকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে তিনি মহিলা আওয়ামীলীগের কোন সদস্য নয়। তিনি সিংগাইর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ।

সার্কিট হাউজে ঘেরাও ও বিক্ষোভের মুখে কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম বলেন কমিটি গঠনের বিষয়টি পূর্নবিবেচনা করা হবে। ডেলিগেটদের মতামত না নিয়েই কেন কমিটি ঘোষনা করা হলে এমন প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে যান।

দুই যুগ আগে নীনা রহমানকে সভাপতি ও লক্ষ্মী চ্যাটার্জীকে সভাপতি করে জেলা কমিটি গঠিত হয়।




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর