রাশিয়ার হামলা রুখতে ইউক্রেনের মানবঢাল
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
রাশিয়ার হামলা রুখতে ইউক্রেনের মানবঢাল




রাশিয়ার হামলা রুখতে ইউক্রেনের মানবঢাল

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ২ মার্চ, ২০২২
  • ২৩০ জন পড়েছে

রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র ও গোলার আঘাতে জ্বলেপুড়ে ছারখার হচ্ছে ইউক্রেনের সামরিক স্থাপনা। হামলার ষষ্ঠ দিনে গতকাল কিয়েভ অভিমুখে যেতে দেখা যায় ৬৫ কিলোমিটার দীর্ঘ রুশ সেনাবহর। আশঙ্কা করা হচ্ছে, রাতেই মরণকামড় বসাতে পারে মস্কো। তবে সারি সারি রুশ ট্যাঙ্কের সামনে মানুষের দেয়াল তৈরি করে প্রতিরোধের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে ইউক্রেনীয়রা। পুরো বিশ্ব এখন তাকিয়ে আছে কিয়েভের ভবিষৎ পরিণতি কী হচ্ছে।

যুদ্ধের ময়দানে রক্তক্ষয়ী ও ধ্বংসাত্মক লড়াই অব্যাহত থাকলেও ইউক্রেনের বাইরে পাশ্চাত্যে দেশে দেশে তোপের মুখে পড়েছে রাশিয়া। প্রায় সব ধরনের সামরিক, বেসামরিক ও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার মুখে এখন জাতিসংঘে দেশটির সদস্যপদ স্থগিত বা বাতিল করার বিষয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনসহ অনেকে কথা বলছেন। ফলে গোটা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়া কত দিন টিকে থাকতে পারবে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

কিয়েভ অভিমুখী বিশাল ট্যাঙ্কবহর নিয়ে এগোনোর পর গতকাল বিকেলে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, ইউক্রেনের রাজধানীর নিরাপত্তা বিভাগের প্রযুক্তিকেন্দ্রসহ বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা চালানো হবে। ফলে বেসামরিক মানুষ যেন দ্রুত কিয়েভ ছেড়ে চলে যায়।

ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘ইউক্রেনের যেসব নাগরিক জাতীয়তাবাদীদের উস্কানিতে তৎপর, তাদের এবং কিয়েভের অন্য বাসিন্দা, যারা এসব স্থাপনার কাছে বসবাস করছেন, তাদেরও সেখান থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করছি।’ রুশ কর্মকর্তারা বলছেন, রাশিয়ার বিরুদ্ধে অপপ্রচার বন্ধের লক্ষ্যে এ হামলা চালানো হবে।

রাশিয়ার এই ঘোষণার পর কিয়েভের মানুষের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। শহরের বাসিন্দাদের জন্য খাদ্য, পানি ও জরুরি সরবরাহ বন্ধের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বিশেষ এক সভায় ভিডিও বার্তার মাধ্যমে ভাষণ দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। এ সময় তিনি বলেন, ‘ইউক্রেনে যা হচ্ছে, তা একটি ট্র্যাজেডি এবং ইউক্রেনীয়রা তাদের দেশ, জীবন ও মুক্তির জন্য যুদ্ধ করছে। আমাদের কেউ মচকাতে পারবে না, কারণ আমরা ইউক্রেনীয়। এখন আপনারা প্রমাণ করুন, আমাদের পাশে আছেন।’

ইউক্রেনে হামলার ষষ্ঠ দিন পর্যন্ত রাশিয়ার পাঁচ হাজার ৭১০ জন রুশ সেনা নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছেন ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা। তাদের দাবি, ইউক্রেনীয় বাহিনী দুই শতাধিক রুশ সেনাকে বন্দি করেছে। সশস্ত্র লড়াইয়ে রাশিয়ার ১৯৮টি ট্যাঙ্ক, ২৯টি বিমান, ৮৪৬টি সাঁজোয়া যান ও ২৯টি হেলিকপ্টার ধ্বংস হয়েছে। তবে এসব দাবির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি বিবিসি।

কিয়েভে একটি টেলিভিশন ভবন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ এবং খারকিভের ফ্রিডম স্কয়ারে রাশিয়া ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। এতে অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছে।

তুমুল লড়াইয়ের মধ্যে রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় আজ বুধবার আলোচনা হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে রুশ বার্তা সংস্থা তাস। সোমবার প্রথম দফার বৈঠক হয়। দ্বিতীয় বৈঠকে যুদ্ধবিরতি বা শান্তির পক্ষে সিদ্ধান্ত হবে কিনা, সেটিই এখন দেখার বিষয়।

ইউক্রেন যুদ্ধকে ঘিরে রাশিয়ার সীমান্তবর্তী ও প্রতিবেশী দেশে সামরিক তৎপরতা বাড়িয়েছে নর্থ আটলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশন (ন্যাটো)। ইউক্রেনে সেনা না পাঠালেও পূর্ব ইউরোপজুড়ে সেনা মোতায়েন অব্যাহত রেখেছে তারা। গতকাল রোমানিয়ায় কয়েকশ সৈন্য পাঠিয়েছে ফ্রান্স। পোল্যান্ডের আকাশে দেখা গেছে জার্মানির যুদ্ধবিমান। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শুক্রবার জরুরি বৈঠকে বসছেন ন্যাটো দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে গতকাল ফোনালাপের সময় জেলেনস্কি বলেছেন, ‘আগ্রাসনকারীদের অবশ্যই রুখে দেব আমরা।’ তবে ইউক্রেনের আকাশে জেলেনস্কির ‘নো-ফ্লাই জোন’ ঘোষণার আহ্বানে সাড়া দেননি বাইডেন। এদিকে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে রাশিয়াকে বাদ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন গতকাল এস্তোনিয়ার তালিনে ন্যাটোর একটি ঘাঁটি পরিদর্শন করেন। এদিন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁর আহ্বানে দেশটির পার্লামেন্টে ইউক্রেনের পক্ষে সমর্থন জানানো হয়। ফরাসি প্রেসিডেন্ট মাখোঁর দাবি, ভেঙে পড়ছে রুশ অর্থনীতির মেরুদণ্ড। তবে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দাবি করেছেন, যতই নিষেধাজ্ঞা আসুক তাতে রাশিয়ার অর্থনীতি কাবু হবে না।

রা/চৌ




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর