সাংবাদিক জালাল উদ্দিন আহমেদের ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
সাংবাদিক জালাল উদ্দিন আহমেদের ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ




সাংবাদিক জালাল উদ্দিন আহমেদের ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট, ২০২২
  • ১৬৩ জন পড়েছে

সাংবাদিক জালাল উদ্দিন আহমেদ এর ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ। জালাল আহমেদ এক ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান । সন্দ্বীপের স্বাধীন রাজা দিলওয়ার খানের তিনি নবম বংশধর। এই ঐতিহ্যবাহী পরিবারে জালাল আহমেদ ১৯৪৪ সালে ১ মে মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর থানাধীন পিপুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহন করেন এবং ১৮-০৮-২০১৪ ইং তারিখে জালাল উদ্দিন আহমেদ মৃত্যু বরন করেন। তাঁর পৈতৃক বাড়ী ঢাকা জেলার সাভার থানার গেন্ডা গ্রামে। তাঁর পিতার নাম শামসুদ্দিন আহমেদ খান। মাতার নাম রিজিয়া বেগম। তার বাবা ছিলেন সরকারী ডাক্তার।

১৯৬৯ সালের মার্চ মাসে তিনি দৈনিক পাকিস্তান পরবর্তীতে দৈনিক বাংলার মাকিগঞ্জের সংবাদ দাতা হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন ।১৯৬১ সালে তিনি সাভার অধর চন্দ্র হাই স্কুল থেকে মেট্রিকুলেশন পাস করেন। ১৯৬৫-৬৬ সেশনে তিনি জগন্নাথ কলেজ ছাত্র সংসদের অতিরিক্ত সাধারন সম্পাদক ছিলেন।একই সময়ে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্থান ছাত্র ইনিয়ন (ঢাকা শহর শাখা) সিনিয়ন সহ-সভাপতি ছিলেন। এছারাও ছাত্র ইউনিয়নের জগন্নাথ কলেজ শাখার প্রচার সম্পাদক ছিলেন। ১৯৬৬ সালে তৎকালীন পূব পাকিস্থান বন্যা উপলক্ষে গঠিত জগন্নাথ কলেজের রিফিল কমিটির(ত্রান কমিটি) সাধারন সম্পাদক হন। ১৯৬৮ সালে ১১ দফা গনআন্দলনের সময় সাভার ও ধামরাই থানার ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক ছিলেন।

১৯৬৮ সালের ভাসানী ন্যাপারে সাভার থানা শাখা কমিটির আহবায়ক হন। ১৯৬৯ সালে ভাষানী ন্যাপের মানিকগঞ্জ পৌর কমিটির সাধারন সম্পাদক ও তৎকালীন ভাসানী ন্যাপের মহকুমা কমিটির কার্যকরি পরিষদের সদস্য হন।

জালাল আহমেদ ১৯৬৯ সালে ইস্টার্ন নিউজ এজেন্সী (এনা) মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। স্বাধীনতাত্তোর ( ১৯৭২-৭৪) তিনি জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্থাপন শাখায় চাকুরীরত ছিলেন। এরপর ১৯৭৫ সালে পুনরায় দৈনিক বাংলার মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন।

দৈনিক বাংলার সাংবাদিকের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি ১৯৮৪ সালে জালাল আহমেদ বাংলাদেশে টেলিভিশন এর জেলা সংবাদদাতার দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও বৃহওর ঢাকা জেলা পরিষদ এর মুখপত্র সাপ্তাহিতক পদক্ষেপ এর সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

জালাল আহমেদ বস্তনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনায় নৈপূন্য ও দক্ষতার দরুন ১৯৮৭ সালে দৈনিক বাংলার স্টাফ রির্পোটার হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন।

সাংবাদিকতা দায়িত্ব পালনে পদে পদে রয়েছে জীবনের ঝুকি । এই ঝুঁকিপূন জীবনকে উত্তরন ঘটানোর লক্ষ্যে সাংবাদিকদের সুসংগঠিত প্রয়াসে জালাল আহমেদ চালিয়েছেন নিরন্তর প্রচেষ্টা। তিনি একাধারে ঢাকা রির্পোটার্স ইউনিটের কার্যকরী পরিষদের নির্বাহী সদস্য,বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতিরি কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধক্ষ্য,সহকারী সম্পাদক,বাংলাদেশ ক্রাইম রির্পোটাস এসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।এছারাও বাংলাদেশ টেলিভিশনের সংবাদদাতা সমিতির কোষাধ্যক্ষ, দৈনিক বাংলার নিজস্ব সংবাদদাতা সমিতির সাধারন সম্পাদক,মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মানিকগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক এবং সাভার প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা উপদেষ্টা হিসেবে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেন।

জালাল আহমেদ ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত। ১৯৭০ সালের নভেম্বরে সিংগাইর পৌরসভার বকচর মহল্লায় শিপ ক্যাপ্টেইন মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলী খানের কন্যা রাফিয়া জালালের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তিনি এক পুত্র ও দুই কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর সন্তানদের নাম কামরুদ্দিন আহমেদ জাকির,লুবনা ফরিদা নিশাত ও ফাতেমা জিন্নাত নিপা।বর্তমানে কামরুদ্দিন আহমেদ জাকির ডেভলপার কোম্পানী “ধলেশ্বরী হাউজিং লিঃ” এর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর