হিন্দু বলে দানিশ কানেরিয়াকে কখনও অপমান করা হয়নি: সালমান বাট | সব খবর | Sob khobar
  1. admin@sobkhobar.com : admin :
  2. editor@sobkhobar.com : editor :
হিন্দু বলে দানিশ কানেরিয়াকে কখনও অপমান করা হয়নি: সালমান বাট | সব খবর | Sob khobar




হিন্দু বলে দানিশ কানেরিয়াকে কখনও অপমান করা হয়নি: সালমান বাট

সব খবর রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১৬৬ জন পড়েছে

ক্রীড়া ডেস্ক: হিন্দু হওয়ার জন্য সতীর্থদের কাছে খারাপ ব্যবহার পেতে হয়েছে দানিশ কানেরিয়াকে, এমনই অভিযোগ করেছিলেন শোয়েব আখতার। যা সমর্থন জানিয়ে মন্তব্য করেছিলেন স্বয়ং কানেরিয়া। কিন্তু পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক সালমন বাট এই অভিযোগে অবাক। তার মতে, এমন কোনও কিছুই ঘটেনি।

স্পট-ফিক্সিংয়ে অভিযুক্ত প্রাক্তন পাক অধিনায়ক সলমন বলেছেন, “কানেরিয়ার মন্তব্যে বিস্মিত হয়েছি। কারণ, ২০০৩ থেকে ২০১০ পর্যন্ত আমি পাকিস্তান দলে ছিলাম। কানেরিয়ার সঙ্গে আমি প্রচুর ম্যাচও খেলেছি। কখনই দেখিনি যে ওকে কেউ অসম্মান করছে বা হিন্দু হওয়ায় হেনস্থা করছে।” বাটের এই মন্তব্য শোয়েব-কানেরিয়ার দাবির একেবারে উল্টো সুরে বাজছে।

শোয়েব আখতার দাবি করেছিলেন, ধর্মের কারণে কানেরিয়াকে অপমানিত হতে হয়েছিল। প্রাপ্য সম্মান দেওয়া হয়নি তাকে। এমনকি, অনেকেই তার সঙ্গে পাশাপাশি বসে খেতেও অস্বীকার করেছিলেন। কানেরিয়াও দাবি করেছিলেন যে, কয়েক জন ক্রিকেটার তাকে ‘টার্গেট’ বানিয়ে ফেলেছিলেন। তবে তিনি কখনই ধর্মান্তরিত হওয়ার তাগিদ অনুভব করেননি। বা তার জন্য কেউ তাকে চাপও দেননি।

বাট যদিও বলেছেন যে, কানেরিয়া যাতে স্বচ্ছন্দ বোধ করেন, সেই চেষ্টাই করা হত। কারণ, তিনি খেললে তা পাকিস্তানের ভাবমূর্তির উন্নতি ঘটাত। স্পট-ফিক্সিংয়ের জন্য পাঁচ বছর নির্বাসিত থাকা বাট বলেছেন, “পাকিস্তান ক্রিকেটের পক্ষে একমাত্র হিন্দু হিসেবে কানেরিয়ার খেলা বিশাল বড় প্রাপ্তি ছিল। আর অধিনায়করা সেই চেষ্টাই করতেন, যাতে কানেরিয়া দলে স্বচ্ছন্দ বোধ করে।”

তিনি নিজে অন্তত দানিশ কানেরিয়াকে দলে কখনও অস্বচ্ছন্দ বোধ করতে দেখেননি বলে জানিয়েছেন প্রাক্তন টেস্ট ওপেনার। তার কথায়, “কোনও সন্দেহ নেই, ও ছিল শীর্ষ মানের বোলার। পাকিস্তানকে অনেক ম্যাচ জিতিয়েছে ও। কিন্তু ও শোয়েবের কথাকে খারিজ না করে সমর্থন করায় অবাক হয়েছি। আমি তো বলব, সেই ক্রিকেটারদের নাম বলা হোক যাঁরা কানেরিয়ার সঙ্গে খারাপ আচরণ করেছিল।”

সবখবর/ আআ




Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর




ফেসবুকে সব খবর